ঢাকা রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

রহনপুরকে নতুন ‘পোর্ট অব কল’ ঘোষণা

সংবাদ প্রতিদিন | প্রকাশিত: ২২ মার্চ ২০২১ ২৩:২১; আপডেট: ২৭ নভেম্বর ২০২২ ১৯:০৭

নেপালের সঙ্গে রেলপথে বাণিজ্য বৃদ্ধির জন্য রহনপুরকে নতুন ‘পোর্ট অব কল’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। সোমবার (২২ মার্চ)  এ সংক্রান্ত একটি লেটার অব এক্সচেঞ্জ সই হয়েছে।

বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও নেপালের রাষ্ট্রপতি বিদ্যা দেবী ভান্ডারির মধ্যে দ্বিপক্ষীয় আলোচনার পর এই চুক্তি সই হয়েছে। এছাড়া পর্যটন, সংস্কৃতি, স্যানিটারি ও ফাইটোস্যানেটারি সংক্রান্ত তিনটি সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে

 

এ বিষয়ে নেপালে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সালাহউদ্দিন নোমান চৌধুরী বলেন, ‘সামগ্রিকভাবে বাংলাদেশ ও নেপালের মধ্যে বাণিজ্যিক সম্পর্ক প্রসারে এই স্মারকগুলো  সই করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এটি একটি ভালো সূচনা। সামনের দিনগুলোতে দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতার ক্ষেত্র আরও উন্মুক্ত হবে বলে আশা করা যায়। নতুন এই রুটে মালামাল পরিবহনের ফলে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সহজতর হবে।’

তিনি জানান, এই নতুন ব্যবস্থার ফলে রহনপুরকে-সিনবাদ দিয়ে নেপালে রেলপথে পণ্য পরিবহন করা সম্ভব হবে। এটি বর্তমান বিরল-রাধিকাপুর ট্রানজিট রুটের অতিরিক্ত।

এর আগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠানে নেপালের রাষ্ট্রপতি তার বক্তব্যে দুই দেশের মধ্যে কানেক্টিভিটি ও বাণিজ্যের ওপর জোর দেন।

কানেক্টিভিটি দুই দেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অভিহিত করে তিনি বলেন, ‘ঢাকা-কাঠমান্ডু ফ্লাইট আরও বাড়ানো যেতে পারে। এছাড়া বাংলাদেশের সৈয়দপুর ও নেপালের বিরাটনগরের মধ্যে বিমান চলাচল শুরু করা যেতে পারে।’

বিদ্যা দেবী বলেন, ‘নেপালের নদীর সঙ্গে বাংলাদেশ ও ভারতের নদীর সংযোগ ঘটানো সম্ভব হলে নদীপথে উন্নয়ন ঘটানো সম্ভব হবে। এর মাধ্যমে কানেক্টিভিটি উন্নত করা সম্ভব হবে এবং বাণিজ্য ও পরিবহন খরচ কমানো যাবে। রেলপথ ও সড়কপথের উন্নয়নের মাধ্যমে কানেক্টিভিটি আরও অর্থবহ করা সম্ভব। এ প্রসঙ্গে আমি বলতে চাই, নেপালে রেলওয়ে ট্রানজিটের জন্য রহনপুরকে পোর্ট অব কল হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার কাজ এগিয়ে যাচ্ছে।’

 




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top