ঢাকা মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯

ফিফার কাছে শাখতারের ৫ কোটি ইউরো ক্ষতিপূরণের দাবী

ক্রীড়া ডেস্ক | প্রকাশিত: ১৯ জুলাই ২০২২ ১২:৫৯; আপডেট: ৪ অক্টোবর ২০২২ ০২:৩৩

ফিফার কাছে ৫ কোটি ইউরো ক্ষতিপূরণ দাবি শাখতারের। রাশিয়ার আগ্রাসনের কারণে খেলা বন্ধ থাকায় এমনিতেই আয় কমে গেছে ইউক্রেইনের ক্লাবগুলোর। ফিফার সিদ্ধান্তে খেলোয়াড় বিক্রি করে আয়ের পথও রুদ্ধ হয়ে গেছে তাদের। সম্ভাব্য ট্রান্সফার ফি হারানোয় বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্তা সংস্থার কাছে তাই পাঁচ কোটি ইউরো আর্থিক ক্ষতিপূরণ দাবি করেছে শাখতার দোনেৎস্ক।

গত জুন মাসে ফিফা আদেশ দেয়, রাশিয়ার আগ্রাসনের প্রেক্ষিতে ইউক্রেইনের ক্লাবগুলির বিদেশি খেলোয়াড় ও কোচরা তাদের চুক্তি স্থগিত করতে পারে।

বিসিবির প্রতিবেদনে সোমবার বলা হয়, ক্ষতিপূরণ চেয়ে আন্তর্জাতিক ক্রীড়া আদালতে (সিএএস) আপিল করেছে শাখতার। বিবিসি স্পোর্টসকে ক্লাবটির প্রধান নির্বাহী সের্গেই পালকিন বলেন, ফিফার ‘অন্যায্য আদেশ’ এর কারণে এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে তাদের।

“এই আদেশের অর্থ হলো, আমরা যে চুক্তিগুলোর ইতি টানার আশা করেছিলাম, সেখান থেকে আমরা উল্লেখযোগ্য আয় হারাতে থাকব। একই সঙ্গে আমরা তুলে ধরতে চাই, ইউক্রেইনের ক্লাবগুলো যুদ্ধের কারণে এমনিতেই কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হচ্ছে, সেখানে ফিফা ক্লাবগুলোর প্রতি যথেষ্ট সম্মান দেখায়নি।”

“ফিফা ক্লাবগুলোকে রক্ষা করতে চায়নি এবং কোনো পর্যায়েই সমাধান বের করার জন্য আমাদের সঙ্গে পরামর্শ করেনি। যুদ্ধের শুরু থেকে ইউক্রেইনের ফুটবল ক্লাবগুলো যে বিপজ্জনক অবস্থার সম্মুখীন হয়েছে, আপাতদৃষ্টিতে তারা (ফিফা) সেটা উপেক্ষা করে গেছে।”

ফিফার আদেশে বিদেশি খেলোয়াড়দের চুক্তি স্থগিত হওয়ায় চার খেলোয়াড় শাখতার ছেড়ে গেছেন। এতে তারা অর্থ হারিয়েছে বলে দাবি করেছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের নিয়মিত দল শাখতার।

সিএএসকে দেওয়া শাখতারের চিঠিটি দেখার দাবি করেছে বিবিসি। ফিফার সিদ্ধান্তের কারণে শাখতার চার বিদেশি খেলোয়াড়ের দলবদল বাবদ ৫ কোটি ইউরো আয়ের সুযোগ হারিয়েছে বলে চিঠিতে উল্লেখ করেছেন পালকিন।

ফিফা গত ২১ জুন তাদের রায়ে বলেছিল, ৩০ জুনের মধ্যে ক্লাবের সঙ্গে নতুন চুক্তিতে পৌঁছাতে না পারলে বিদেশি খেলোয়াড় ও কোচরা ২০২৩ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত তাদের চুক্তি স্থগিত রাখতে পারবে।

শাখতারের স্কোয়াডে মোট বিদেশি খেলোয়াড়ের সংখ্যা ছিল ১৪ জন। আর্থিক ক্ষতি পোষাতে এই খেলোয়াড়দের মধ্যে থেকে কয়েকজনকে বিক্রির ইচ্ছা ছিল ক্লাবটির।

রাশিয়ার আগ্রাসনের কারণে এমনিতেই শাখতারের রাজস্ব আয়ে ব্যাপক প্রভাব পড়েছে। ১৩ বারের ইউক্রেইন লিগের চ্যাম্পিয়নরা সেটা পুষিয়ে নেওয়ার আশায় ছিল।

তাদের দাবি, চুক্তি স্থগিতের আগে খেলোয়াড়দের সঙ্গে নতুন চুক্তির জন্য মাত্র এক সপ্তাহের একটু বেশি সময় ছিল। খেলোয়াড় কেনায় আগ্রহী ক্লাবগুলো এবং এজেন্টরা তাই ট্রান্সফার ফি এড়ানোর সুযোগের অপেক্ষায় ছিল।

 




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


এই বিভাগের জনপ্রিয় খবর
Top